Breaking News

‘আমার বউ ফেরত চাই’, দাবি না মানায় শাশুড়ির মাথায় মুগুরের বাড়ি মারলেন জামাই! জানিন বিস্তারিত

বাপের বাড়িতে ছিলেন বউ। কিন্তু স্বামী চেয়েছিলেন নিজের শ্বশুরবাড়িতে ফিরুক স্ত্রী। সেই কথাতে রাজী হননি তিনি। এদিকে, ওই ব্যক্তির শাশুড়িও মেয়েকে শ্বশুরবাড়ি পাঠাতে চাইছিলেন না। এরপরই জামাইয়ের চড়ে যায় রাগ। শাশুড়ির মাথায় সোজা মারলেন মুগুরের বাড়ি।

ঘটনাস্থান পশ্চিম মেদিনীপুরের দাসপুরের। জানা গিয়েছে, কালীপুজোর রাতে নিজের স্ত্রী অঙ্কিতা বাগকে বাপের বাড়ি থেকে নিয়ে যেতে আসে পূর্ব মেদিনীপুরের বাহারজোলা কুলহান্ডার বাসিন্দা শিবপ্রসাদ। অভিযোগ, সেই সময় মদ্যপ অবস্থায় ছিল সে। যার কারণে শিবপ্রসাদের শ্বশুরবাড়ির সদস্যদের সঙ্গে শুরু হয় তুমুল বচসা।

স্ত্রী শ্বশুরবাড়িতে ফিরতে না চাওয়ায় শাশুড়িকে মুগুর দিয়ে বাড়ি মারলেন জামাই। ঘটনা পশ্চিম মেদিনীপুরের দাসপুরের। ঘটনার সময় শিবপ্রসাদ নামে ওই যুবক মত্ত অবস্থায় ছিলেন। এর পর তাঁকে উত্তম-মধ্যম দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেন স্থানীয়রা।

পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে, পূর্ব মেদিনীপুরের কুণ্ডাহারের বাসিন্দা শিবপ্রসাদ বিয়ের পর থেকেই মত্ত অবস্থায় স্ত্রীর ওপর নির্যাতন চালাতেন। তার জেরে দাসপুরে নিজের বড়ি চলে আসেন স্ত্রী। বৃহস্পতিবার কালীপুজোর রাতে স্ত্রীকে নিতে দাসপুরে যান শিবপ্রসাদ।

কিন্তু স্ত্রী ফিরতে রাজি ছিলেন না। এই নিয়ে শাশুড়ির সঙ্গে তাঁর বিবাদ শুরু হয়। কথা কাটাকাটির মধ্যেই মুগুর তুলে শাশুড়ি অঞ্জলি মণ্ডলকে আঘাত করেন যুবক। গুরুতর আহত হন বৃদ্ধা।

অভিযুক্তের স্ত্রী জানিয়েছেন, বিয়ের পর থেকেই আমাকে মারধর করত। আমি বাপের বাড়ি চলে এসেছি। বৃহস্পতিবার রাতে এখানে এসেও ডাকাডাকি শুরু করে। আমি বাইরে বেরোইনি। মা যায় ওর সঙ্গে কথা বলতে। তখন মাকে ও মুগুর দিয়ে মারে।

ঘটনার পরই শিবপ্রসাদকে ঘিরে ফেলেন গ্রামবাসীরা। ব্যাপক গণধোলাই দেন তাঁরা। এর পর পুলিশ পৌঁছলে অভিযুক্তকে তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

About Desk Five

Check Also

না বয়স না ধর্ম, এই বলি স্টারদের বিয়েতে কোনও কিছুই বাধা হয়নি..দেখে নিন বিস্তারিত

প্রেম দেখে না ধর্ম, দেখে না বয়স। এটি কেবল একটি প্রবাদই নয়, এটি একটি বাস্তবও …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *